মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
Google search engine
Homeসংবাদজগন্নাথপুরে প্রবাসীর জমি দখলচেষ্টার অভিযোগ

জগন্নাথপুরে প্রবাসীর জমি দখলচেষ্টার অভিযোগ

আধুনিক ডেস্ক:

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার ইসমাইল চক গ্রামের মৃত ইয়াজ উল্যার ছেলে লন্ডন প্রবাসী মো. কমর উদ্দিনের জমি জোরপূর্বক দখল করে নেওয়ার চেষ্টা করছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী গোষ্ঠী। তারা ওই জমিতে দেয়াল নির্মাণেও বাধা দিচ্ছে কমর উদ্দিনের লোকজনকে।

বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে প্রবাসী কমর উদ্দিনের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তার নিকটাত্মীয় মো. বাবুল মিয়া।

বাবুল মিয়া সংবাদ সম্মেলনে জানান, জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া ইউনিয়নের ইসমাইল চক গ্রামের ওয়াজিদ উল্লার ছেলে তাহার মিয়া ওরফে তেরা মিয়া ও তার ছোট ভাই সুজন মিয়া এলাকায় ভূমিখেকো হিসেবে পরিচিত। একই গ্রামের প্রবাসী কমর উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে পবিবার পরিজন নিয়ে লন্ডনে বসবাস করছেন। সেই সুযোগে ভূমিখেকোচক্রের তাহার মিয়া ওরফে তেরা মিয়া ও তার লোকজন কমর উদ্দিনের জায়গা জাল দলিল ও নামজারির মাধ্যমে তাদের নামে রেকর্ড করে নেয়। জমির খাজনা পরিশোধ করতে গিয়ে বিষয়টি জানা যায়। পরে দলিলের নকল তুলে জানা যায় তাদের করা দলিল (দলিল নং- ৪৯৮/২০০৪) জাল। জমির দাগ, খতিয়ান এবং মৌজার সাথে দলিলের কোন মিল নেই। এব্যাপারে পরে কমর উদ্দিনের পক্ষে জগন্নাথপুরের সহকারী কমিশনার বরাবরে নামজারি রিভিউয়ের জন্য মোকদ্দোমা (নং-১০১/২০২৩-২৪) দাখিল করা হয়।

বাবুল মিয়া জানান, তেরা মিয়া তার দলিলে উল্লেখ করেন জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের পশ্চিম গড়গড়িয়া গ্রামের আব্দুর নুরের নামে ওই জমির দলিল রয়েছে। কিন্তু তা সত্য নয়। ওই জায়গা উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের ১৮৬ নং জেলস্থীত প্রাণদেব কাপন মৌজায়। তেরা মিয়ার উল্লেখিত দলিলের সাথে ওই জায়গার কোন মিল নেই। অথচ এই ভূয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে তেরা মিয়ার নামে জমি নামজারি করে নেওয়া হয়।

বাবুল মিয়া জানান, কমর উদ্দিন ওই জায়গার খরিদা সূত্রে মালিক। দীর্ঘদিন ধরে কমর উদ্দিন ও তার স্বজনরা ওই জমি ভোগ দখল করে আসছেন। একই সাথে যথাযথ নিয়মে জমির খাজনাও প্রদান করছেন। ভূমিখেকো তেরা মিয়া ওই জমির জাল দলিল করার বিষয়টি জানার পর সহকারী কমিশনার বরাবর রিভিউ পিটিশন দিয়ে নামজারি ভাঙার আবেদন করা হয়। এরপর সহকারি কমিশনার বাদী ও বিবাদীকে শুনানির জন্য নোটিশ প্রদান করেন। কিন্তু বিবাদী পক্ষ পর পর ৩টি নোটিশের পর আদালতে হাজির হয়নি। পরবর্তীতে সহকারি কমিশনার দলিল যাচাই-বাচাই করে দেখেন তেরা মিয়ার দলিলটি জাল। এ অবস্থায় নামজারি জমাভাগের আবেদন নামঞ্জুর সিদ্ধান্তের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়। একই সাথে ওই মৌজায় ৩ একর ১৯ শতক জমি ১১ নম্বর খতিয়ানে পুনর্বহাল করার আদেশ প্রদান করা হয়।

বাবুল মিয়া জানান, এর পরও থামেনি তেরা মিয়া ও তার চক্রের লোকজন। তারা ওই জায়গায় দেওয়াল নির্মাণে বাধা দিচ্ছেন। এমনকি বিভিন্ন হুমকিও প্রদান করছে। এ অবস্থায় নিরাপত্তার জন্য আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সহযোগিতা চান প্রবাসী কমর উদ্দিনের স্বজনরা।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সিলেট জেলা প্রেসক্লাব থেকে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক ইমেইলে সংবাদ সম্মেলনের এই তথ্য জানানো হয়। উল্লিখিত বিষয়ে সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোরের পক্ষ থেকে স্বতন্ত্রভাবে কারো কোন বক্তব্য নেওয়া হয়নি।

প্রাসঙ্গিক সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

জনপ্রিয়

Recent Comments